1. admin@sitakundnews.com : sitakundnews.com :
শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২০, ১১:৩২ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
কুমিরায় তেলের ভাউচার ও প্রাইভেট কারের সংঘর্ষে আহত ২ সীতাকুণ্ডে বিন হাবিব এলপি গ্যাসের গাড়ি চাপায় নারী নিহত সীতাকুণ্ডে ভূমি অধিগ্রহণ ক্ষতিপূরণের টাকা আত্মসাৎ মামলায় কারাগারে যুবক সীতাকুণ্ড পৌরসভায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে সর্বশান্ত ১৫ পরিবার সীতাকুণ্ডে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ১, আহত ১ বিজয় স্মরণী কলেজে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগ! সীতাকুণ্ড উপজেলা ছাত্রলীগের নতুন কমিটি, শিহাব সভাপতি ও জিলানী সম্পাদক সীতাকুণ্ডে ট্রেনে পাথর ছোড়ার ঘটনায় গ্রেফতার ১ সীতাকুণ্ডে পিতা-পুত্রকে কুপিয়ে জখমের মামলায় আসামীর জামিন নামঞ্জুর ভাটিয়ারীতে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে ৫ দোকান পুড়ে ছাই

দশ বছরের কম বয়সী ‍শিশুদের টার্গেট করতেন তিনি!

  • প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর, ২০২০
  • ৬১ বার পড়া হয়েছে

চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ায় এক কওমি মাদরাসার ছাত্রাবাসে ১০ বছর বয়সী চার শিশুকে বলাৎকারের অভিযোগে নাছির উদ্দিন নামে ওই মাদরাসার এক শিক্ষককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গ্রেপ্তারের পর নাছির উদ্দিন জানিয়েছে, ধর্ষণ করার জন্য মূলত দশ বছরের নিচে বয়সী ছেলেশিশুদেরকেই টার্গেট করতেন তিনি।

সোমবার (১৯ অক্টোবর) রাতে এই ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় রাঙ্গুনিয়া থানায় মামলা হলে অভিযুক্ত ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করার পর তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।নাছির উদ্দিন কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার ছোট বেওলা গ্রামের নুরুল ইসলামের ছেলে।

পুলিশ জানিয়েছে, নাছির উপজেলার স্বনির্ভর রাঙ্গুনিয়া ইউনিয়নের শাহ আহমদিয়া আজিজুল উলুম মাদরাসার শিক্ষকতা করেন। পাশাপাশি তিনি একই মাদরাসার হোস্টেল সুপারের দায়িত্বে ছিলেন।একই মাদরাসার আরও একাধিক শিশু শিক্ষার্থীকে বলাৎকারের  অভিযোগ রয়েছে নাছির উদ্দিনের বিরুদ্ধে। ৪ শিশুকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

সহকারী পুলিশ সুপার (রাঙ্গুনিয়া সার্কেল) মো. আনোয়ার হোসেন শামীম বলেন, মামলা দায়েরের পর অভিযান চালিয়ে তাকে আমরা আইনের আওতায় নিয়ে আসি।

আনোয়ার হোসেন শামীম বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে নাছির জানিয়েছে, মাদ্রাসার হোস্টেলের ইনচার্জ হিসেবে দায়িত্বে থাকার সুযোগ নিয়ে ভয়ভীতি দেখিয়ে অনেক শিশু ছাত্রকেই নিয়মিত বিছানার সঙ্গী করেন তিনি। ঘটনা সংক্রান্তে প্রাথমিক অনুসন্ধান চালাতে গিয়ে যা বের হয়ে আসে, তাতে শিউরে উঠবেন যেকোনো বিবেকবান মানুষই। ধর্ষণ করার জন্য মূলত দশ বছরের নিচে বয়সী ছেলেশিশুদেরকেই টার্গেট করতেন তিনি। কোন শিশু তার আহ্বানে সাড়া না দিলে তাকে বাধ্য করার জন্য কারণে অকারণে তাকে বেধড়ক মারধোর করা হতো। যেহেতু সেখানে বেশিরভাগ শিশুই এতিম ওদরিদ্র পরিবার থেকে আসা, শেষপর্যন্ত তার পক্ষে হুজুরের প্রস্তাবে হ্যাঁ বলা ভিন্ন কোন উপায় থাকতো না। নাছিরের ছেলেশিশু আসক্তি এমন পর্যায়ে উন্নীত হয়েছিলো যে, বিষয়টি টের পেয়ে তার স্ত্রী তিন বছরের সন্তানকে নিয়ে তাকে ছেড়ে চলে যান।

তিনি আরো বলেন, এক অভিভাবকের কাছ থেকে প্রাথমিক অভিযোগ পাবার পর আমাদের বিশদ অনুসন্ধানে উঠে আসে বলাৎকারকারী নাছিরের গোপন বিকৃত যৌনজীবনের অবিশ্বাস্য সব খতিয়ান। তারপর আনুষ্ঠানিক অভিযোগ দায়ের এবং মধ্যরাতে পরিচালিত আমাদের অভিযানে গ্রেপ্তার ভণ্ড হুজুর মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন। কিন্তু গ্রেপ্তারের পর রীতিমতো ভোল পালটে ফেলেন তিনি। বারবার আমাদের নিকট দাবি করতে থাকেন, তিনি নাকি কাউকে জোর করে বিছানায় নিতেন না, ছাত্ররাই নাকি স্বেচ্ছায় তার সঙ্গ নিতে আসতো। যদিও গরিব ঘরের অসহায় ছেলেগুলোর সাথে দিনের পর দিন কোন কৌশলে, কি কি ঘটিয়েছে নরপশু নাছির, তা আমাদের অজানা ছিল না।

আজ সকালে আদালতে পাঠানো হলে গ্রেপ্তারকৃত নাছির ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়ে তার বিরুদ্ধে আনীত বলাৎকারের অভিযোগ স্বীকার করে নেন। পাশাপাশি বলাৎকারের শিকার শিশুদের মধ্যে চারজনও আদালতে উপস্থিত হয়ে তাদের উপর চালানো নির্মমতার বর্ণনা দেয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
ওয়েবসাইট নকশা মাল্টিকেয়ার

প্রযুক্তি সহায়তায় মাল্টিকেয়ার